বাংলার সংস্কৃতি বাংলা ও ভারতের পূর্ব অংশে বাংলাভাষী প্রধান অঞ্চলের সংস্কৃতি

বাংলার সংস্কৃতি

বাংলার সংস্কৃতি (ইংরেজি: Culture of Bengal) বাংলাদেশ এবং ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য, ত্রিপুরা ও আসামের বারাক উপত্যকাসহ ভারতীয় উপমহাদেশের পূর্ব অংশে বঙ্গ অঞ্চলকে ঘিরে রেখেছে, যেখানে বাংলা ভাষা সরকারী এবং প্রাথমিক ভাষা। বাংলার দালিলিক ইতিহাস হচ্ছে ১৪০০ বছরের। বঙ্গ অঞ্চলে বাঙালি জনগণ হচ্ছে প্রাধান্যকারী নৃভাষিক জাতি। এই অঞ্চলটি ঐতিহাসিক মিশ্রণস্থান হিসাবে কাজ করেছে, সর্ব-দেশীয় (ইংরেজি: Pan-Deshio) … Read more

বাংলা নামের উৎপত্তি হয়েছে বঙ্গ শব্দের সাথে আল বা আইল শব্দ যুক্ত হয়ে

বাংলা নামের উৎপত্তি

বাংলা বা বাঙ্গালাহ (ইংরেজি: Bangla or Bengal) নামের উৎপত্তি হয়েছে বঙ্গ শব্দের সাথে আল বা আইল শব্দ যুক্ত হয়ে। ‘বঙ্গ’ নামটিই শেষ পর্যন্ত বৃহৎ আকারে ‘বাঙ্গালা’ নামে রূপান্তরিত হয়। অনেকে বঙ্গকে চীন তিব্বতী গোষ্ঠীর শব্দ এবং এ শব্দের ‘অং’ অংশের সঙ্গে গঙ্গা, হোয়াংহো, ইয়াংসিকিয়াং ইত্যাদি নদীর নামের সম্বন্ধ ধরে অনুমান করেন যে, শব্দটির মৌলিক অর্থ … Read more

বাংলার ইতিহাসে ভৌগোলিক উপাদান বা ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্যাবলীর প্রভাব

বাংলার ভৌগোলিক উপাদান

বাংলার ইতিহাসে ভৌগোলিক উপাদান বা ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্যাবলীর প্রভাব (ইংরেজি: Influence of Geographical factors on History of Bengal) বলতে বোঝানো হয় ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্য যেসব ক্ষেত্রে বাংলার ইতিহাসে প্রভাব বিস্তার করে সেসব উপাদানসমূহ। বাংলার ভৌগোলিক পরিচয় থেকে এ অঞ্চলের ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্যগুলো খুঁজে পাওয়া যায়। প্রথমত, গাঠনিক ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়ায় বাংলা ভূ-খন্ডের অস্তিত্ব বা অবস্থান উপমহাদেশের সর্বপূর্বান্তে নির্ধারিত হয়েছে। দ্বিতীয়ত, … Read more

বাংলা বা বঙ্গের ভৌগোলিক পরিচয় বা ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্যাবলী প্রসঙ্গে

বাংলা অঞ্চল

বাংলা বা বঙ্গ বা বাংলা অঞ্চলের ভৌগোলিক পরিচয় বা বৈশিষ্ট্যাবলী (ইংরেজি: Geographical identity of Bengal) হচ্ছে ৮০ হাজার বর্গমাইল বিস্তৃত নদীবাহিত পলি দ্বারা গঠিত এক বিশাল সমভূমি। এদেশের ভৌগোলিক পরিচয় এদেশের ইতিহাসকে যুগ যুগ ধরে প্রভাবিত করেছে। প্রথমেই বাংলা বলতে কোনো ভূ-খন্ডকে বোঝাতো তা স্পষ্ট করে নেয়া প্রয়োজন। মোটামুটিভাবে ১৯৪৭-এর পূর্বে ব্রিটিশ ভারতের ‘বেঙ্গল’ প্রদেশের … Read more

ভারতীয় উপমহাদেশের ভৌগোলিক অবস্থান বা প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্যসমূহ

ভারতীয় উপমহাদেশের অবস্থান

ভারতীয় উপমহাদেশের ভৌগোলিক অবস্থান দক্ষিণ এশিয়ায়। উপমহাদেশ বা দক্ষিণ এশিয়ার নয়া উপনিবেশিক ভূভাগ বা একত্রে ভারত, বাংলাদেশ ও পাকিস্তান (ইংরেজি: Indian Subcontinent) এশিয়ার দক্ষিণভাগে অবস্থিত একটি ছোটখাট মহাদেশ। নির্দিষ্ট প্রাকৃতিক সীমারেখা ভারতীয় উপমহাদেশকে এশিয়ার অন্যান্য অঞ্চল থেকে পৃথক করেছে। ভূ-প্রকৃতির বৈশিষ্ট অনুসারে এই উপমহাদেশকে পাঁচটি অঞ্চলে ভাগ করা হয়েছে। (ক)  উত্তরে হিমালয় ও তৎসংলগ্ন পার্বত্য … Read more

সাঁওতাল বিদ্রোহের ফলাফল হচ্ছে জাতির স্বায়ত্তশাসনের মর্যাদা পুনরুদ্ধার

সাঁওতাল বিদ্রোহের ফলাফল

সাঁওতাল বিদ্রোহের ফলাফল (ইংরেজি: Results of the Santal Rebellion)  হচ্ছে সাঁওতাল জাতির স্বায়ত্তশাসনের মর্যাদা পুনরুদ্ধার, তাঁদের বিশেষ অধিকারের স্বীকৃতি, সাঁওতাল পরগণা গঠন এবং সাঁওতাল পরগণায় তিন বছরের জন্য মহাজনদের প্রবেশাধিকার নিষিদ্ধ করা হয়। তবে সাঁওতাল পরগণায় ইংরেজদের প্রবেশ বেড়ে যায়, সাঁওতালদের ভেতরে মিশনারিদের কাজ করতে দেয়া হয়। এছাড়াও আরো কিছু ফলাফল নিচে আলোচনা করা হলো। … Read more

সাঁওতাল বিদ্রোহের কারণ হচ্ছে খাজনা বৃদ্ধি, মহাজনদের শোষণ ও কারচুপি

সাওতাল বিদ্রোহের কারণ

সাঁওতাল বিদ্রোহের কারণ (ইংরেজি: Causes of Santhal Rebellion) নিহিত আছে খাজনা বৃদ্ধি, মহাজনদের শোষণ ও বহিরাগত ব্যবসায়ীদের কারচুপির ভেতরে। ১৮৫০ এর দশকে  সুদখোর মহাজন ও দাদন ব্যবসায়ীদের শোষণ ও ঠকবাজীতে সাঁওতাল জনগণ নিঃস্ব হয়ে পড়েছিলেন। মহাজনের ঋণ যতই ফেরৎ দিক, কখনও শোধ হতো না। বংশ পরম্পরায় পরিশোধ করতে হতো, ঋণ পরিশোধের নামে স্ত্রী-পুত্র-কন্যাকে সারাজীবন গোলাম … Read more

রাজমহলের যুদ্ধ হচ্ছে বাংলাকে পরাধীন করার অন্যতম নিষ্পত্তিমূলক যুদ্ধ

রাজমহলের যুদ্ধ

রাজমহলের যুদ্ধ (ইংরেজি: The battle of Rajmahal) হচ্ছে বাংলায় দিল্লির আধিপত্য বিস্তার ও বাংলাকে পরাধীন করার অন্যতম নিষ্পত্তিমূলক যুদ্ধ। ১২ জুলাই ১৫৭৬ খ্রিষ্টাব্দের এই যুদ্ধের মাধ্যমে বাংলার স্বাধীনতা বিলুপ্ত হয়ে বাংলা দিল্লির আধিপত্যবাদী মুগল শাসনের সূত্রপাত হয়। এই যুদ্ধ থেকেই বাংলাসহ গোটা পূর্বদেশ চারশ বছরের জন্য পরাধীন হয়ে যায়। ১৫৭৬ সালের ১২ জুলাই তারিখে রাজমহলের যুদ্ধ … Read more

পাবনা কৃষক বিদ্রোহ ছিল জমিদারদের বিরুদ্ধে একটি উল্লেখযোগ্য বিদ্রোহ

পাবনা বিদ্রোহ

পাবনা কৃষক বিদ্রোহ (ইংরেজি: Pabna Peasant Uprising) ছিল ১৮৭৩ সালে জমিদারদের বিরুদ্ধে জেগে ওঠা একটি উল্লেখযোগ্য বিদ্রোহ। নীল বিদ্রোহের পর দুই দশক ধরে অব্যাহত শান্তি বিরাজ করে। কৃষক সমাজ তাদের নিজস্ব ক্ষুদ্র গণ্ডিতে সুখে বাস করছিল বলে প্রতীয়মান হয়। কিন্তু ১৮৭০ এবং ৮০-এর দশকে প্রজাগণ পুনরায় প্রতিরোধমুখী হয়ে উঠে। ১৮৬০-এর দশকে কৃষিপণ্যের মূল্য বৃদ্ধি এবং … Read more

নীল বিদ্রোহ বা নীল প্রতিরোধ আন্দোলন ছিল কৃষক আন্দোলন

নীল বিদ্রোহ

নীল বিদ্রোহ বা নীল প্রতিরোধ আন্দোলন (ইংরেজি: Indigo revolt) ছিল কৃষক আন্দোলন এবং পরবর্তীকালে নীল খামারীদের বিরুদ্ধে নীল চাষীদের অভ্যুত্থান হয়েছিল। কোম্পানি শাসনে অনেক অর্থকরী ফসল প্রবর্তন করা হয়, যেগুলোর একটি হলো নীল—এক জাতীয় রঙীন গাছ। রাজস্ব পরিশোধের জন্য কৃষকদের নগদ অর্থের প্রয়োজন ছিল এবং নীল চাষ তাদেরকে এই নগদ অর্থ লাভের উত্তম সুযোগ এনে … Read more

You cannot copy content of this page