উপমহাদেশের সুলতানী মধ্যযুগের ইতিহাসের উৎস হিসেবে সাহিত্যিক উপাদান

সুলতানী মধ্যযুগের ইতিহাসের উৎস

উপমহাদেশের সামন্তবাদী মুসলিম প্রাক-মুঘল সুলতানী মধ্যযুগের ইতিহাসের উৎস হিসেবে সাহিত্যিক উপাদান (ইংরেজি: Literary sources of Feudal sultanate of Indian history) হচ্ছে ইতিহাস রচনার একটি গুরুত্বপূর্ণ উৎস। প্রত্নতাত্ত্বিক উৎস ছাড়াও আমাদের কাছে মধ্যযুগের সামন্তবাদী ভারতের ইতিহাস পুনর্গঠনের জন্য এই উৎসটি প্রচুর ব্যবহৃত। বিভিন্ন সময়ে বিদেশীরা ভারতবর্ষ সম্পর্কে বিবরণ লিখেছিলেন। তাঁদের মধ্যে কেউ এ দেশে এসে তাঁদের … Read more

সামন্তবাদী ভারতের ইতিহাসের উৎস হিসেবে বিদেশীদের বিবরণ প্রসঙ্গে

বিদেশীদের বিবরণ

সামন্তবাদী ভারতের ইতিহাসের উৎস হিসেবে বিদেশীদের বিবরণ (ইংরেজি: Description of foreigners as a source of Indian history) হচ্ছে ইতিহাস রচনার একটি গুরুত্বপূর্ণ উৎস। সাহিত্যিক উৎস ও প্রত্নতাত্ত্বিক উৎস ছাড়াও আমাদের কাছে প্রাচীন ভারতের ইতিহাস পুনর্গঠনের জন্য এই উৎসটি প্রচুর ব্যবহৃত। বিভিন্ন সময়ে বিদেশীরা ভারতবর্ষ সম্পর্কে বিবরণ লিখেছিলেন। তাঁদের মধ্যে কেউ এ দেশে এসে তাঁদের প্রত্যক্ষ … Read more

সামন্তবাদী ভারতের ইতিহাসের প্রত্নতাত্ত্বিক উৎস প্রসঙ্গে

ভারতের প্রত্নতাত্ত্বিক উৎস

সামন্তবাদী ভারতের ইতিহাসের প্রত্নতাত্ত্বিক উৎস (ইংরেজি: Archaeological sources of Indian history) হচ্ছে ইতিহাস রচনার একটি প্রধান উৎস। প্রত্নতাত্ত্বিক উপাদান তথা লেখ, মুদ্রা ও স্মৃতিসৌধের মত বিষয়গুলো প্রাচীন ভারতের ইতিহাস জানতে আমাদের সাহায্যে করে। শুধুমাত্র সাহিত্যিক উপাদানের ওপর নির্ভর করতে হলে প্রাচীন ভারতের ইতিহাসের অনেক কিছুই আমাদের অজানা থেকে যেত। প্রত্নতত্ত্ব এক্ষেত্রে আমাদের সাহায্য করেছে। ভারতীয় … Read more

সামন্তবাদী ভারতের ইতিহাসের লেখমালা বা সাহিত্যিক উৎস প্রসঙ্গে

ভারতের ইতিহাসের সাহিত্যিক উৎস

সামন্তবাদী ভারতের ইতিহাসের লেখমালা বা সাহিত্যিক উৎস (ইংরেজি: Literary source of the history of India) হচ্ছে ইতিহাস রচবনার একটি প্রধান উৎস। স্থায়ী কোনো বস্তু যেমন পাথর, ধাতবখণ্ড, পােড়ামাটি, কাষ্ঠখণ্ড ইত্যাদির উপর বিশেষ প্রক্রিয়ায় লিখন-পদ্ধতিকে লেখমালা বা লিখিত উৎস বলা যেতে পারে। এসব লিখিত উৎসের মধ্যে সাহিত্যিক উৎসসমূহ প্রধান। প্রাচীন ভারতে সাহিত্যের বিভিন্ন শাখায় ও বিভিন্ন … Read more

প্রাচীন ভারতের ইতিহাসের তিনটি উৎস ও বিভিন্ন উপাদান প্রসঙ্গে

ভারতের ইতিহাসের উৎস

প্রাচীন ভারতের ইতিহাসের উৎস (ইংরেজি: Three sources of the History of ancient India) ও সেসব উৎসের বিভিন্ন উপাদান হচ্ছে ভারতের ইতিহাস পুনর্গঠনের প্রাচীন তিন ধরনের উৎস ও সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন উপাদান। ইতিহাসের উৎসের বিশ্লেষণ, ব্যাখ্যা, ঐতিহাসিকদের বিভিন্ন দৃষ্টিকোণ, মতবাদ, দেশ-কাল ভেদের বিভিন্নতার জন্যে পৃথক হতে পারে। এর ফলে ইতিহাস বিষয়টির উপর আকর্ষণ অনেক অংশে বেড়ে যায়। … Read more

বাংলা নামের উৎপত্তি হয়েছে বঙ্গ শব্দের সাথে আল বা আইল শব্দ যুক্ত হয়ে

বাংলা নামের উৎপত্তি

বাংলা বা বাঙ্গালাহ (ইংরেজি: Bangla or Bengal) নামের উৎপত্তি হয়েছে বঙ্গ শব্দের সাথে আল বা আইল শব্দ যুক্ত হয়ে। ‘বঙ্গ’ নামটিই শেষ পর্যন্ত বৃহৎ আকারে ‘বাঙ্গালা’ নামে রূপান্তরিত হয়। অনেকে বঙ্গকে চীন তিব্বতী গোষ্ঠীর শব্দ এবং এ শব্দের ‘অং’ অংশের সঙ্গে গঙ্গা, হোয়াংহো, ইয়াংসিকিয়াং ইত্যাদি নদীর নামের সম্বন্ধ ধরে অনুমান করেন যে, শব্দটির মৌলিক অর্থ … Read more

বাংলার ইতিহাসে ভৌগোলিক উপাদান বা ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্যাবলীর প্রভাব

বাংলার ভৌগোলিক উপাদান

বাংলার ইতিহাসে ভৌগোলিক উপাদান বা ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্যাবলীর প্রভাব (ইংরেজি: Influence of Geographical factors on History of Bengal) বলতে বোঝানো হয় ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্য যেসব ক্ষেত্রে বাংলার ইতিহাসে প্রভাব বিস্তার করে সেসব উপাদানসমূহ। বাংলার ভৌগোলিক পরিচয় থেকে এ অঞ্চলের ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্যগুলো খুঁজে পাওয়া যায়। প্রথমত, গাঠনিক ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়ায় বাংলা ভূ-খন্ডের অস্তিত্ব বা অবস্থান উপমহাদেশের সর্বপূর্বান্তে নির্ধারিত হয়েছে। দ্বিতীয়ত, … Read more

বাংলা বা বঙ্গের ভৌগোলিক পরিচয় বা ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্যাবলী প্রসঙ্গে

বাংলা অঞ্চল

বাংলা বা বঙ্গ বা বাংলা অঞ্চলের ভৌগোলিক পরিচয় বা বৈশিষ্ট্যাবলী (ইংরেজি: Geographical identity of Bengal) হচ্ছে ৮০ হাজার বর্গমাইল বিস্তৃত নদীবাহিত পলি দ্বারা গঠিত এক বিশাল সমভূমি। এদেশের ভৌগোলিক পরিচয় এদেশের ইতিহাসকে যুগ যুগ ধরে প্রভাবিত করেছে। প্রথমেই বাংলা বলতে কোনো ভূ-খন্ডকে বোঝাতো তা স্পষ্ট করে নেয়া প্রয়োজন। মোটামুটিভাবে ১৯৪৭-এর পূর্বে ব্রিটিশ ভারতের ‘বেঙ্গল’ প্রদেশের … Read more

ভারতের ইতিহাসে ভৌগোলিক উপাদানের বা ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্যাবলীর প্রভাব

ভৌগোলিক উপাদানের প্রভাব

দক্ষিণ এশিয়ার দেশ ভারতের ইতিহাসে ভৌগোলিক উপাদানের বা ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্যাবলীর প্রভাব (ইংরেজি: Influence of Geographical factors on Indian History) বলতে বোঝানো হয় ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্য যেসব ক্ষেত্রে ইতিহাসে প্রভাব বিস্তার করে। ভারতের উত্তরে অবস্থিত হিমালয় পর্বতমালা এবং দক্ষিণে অবস্থিত তিন দিক থেকে সমুদ্র দ্বারা বেষ্টিত শস্যশ্যামলা সমভূমি, বালুকাময় প্রান্তর, মালভূমি, গহীন অরণ্য, আর আছে অসংখ্য নদনদী … Read more

ভারতীয় উপমহাদেশের ভৌগোলিক অবস্থান বা প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্যসমূহ

ভারতীয় উপমহাদেশের অবস্থান

ভারতীয় উপমহাদেশের ভৌগোলিক অবস্থান দক্ষিণ এশিয়ায়। উপমহাদেশ বা দক্ষিণ এশিয়ার নয়া উপনিবেশিক ভূভাগ বা একত্রে ভারত, বাংলাদেশ ও পাকিস্তান (ইংরেজি: Indian Subcontinent) এশিয়ার দক্ষিণভাগে অবস্থিত একটি ছোটখাট মহাদেশ। নির্দিষ্ট প্রাকৃতিক সীমারেখা ভারতীয় উপমহাদেশকে এশিয়ার অন্যান্য অঞ্চল থেকে পৃথক করেছে। ভূ-প্রকৃতির বৈশিষ্ট অনুসারে এই উপমহাদেশকে পাঁচটি অঞ্চলে ভাগ করা হয়েছে। (ক)  উত্তরে হিমালয় ও তৎসংলগ্ন পার্বত্য … Read more

You cannot copy content of this page