মন্টেস্কুর আইনতত্ত্ব হচ্ছে দ্য স্পিরিট অব লজ গ্রন্থে প্রদত্ত আইনের ব্যাখা

মন্টেস্কুর আইনতত্ত্ব (ইংরেজি: Theory of Law of Montesquieu) হচ্ছে আধুনিক রাষ্ট্রবিজ্ঞানী চার্লস লুই দ্য মন্টেস্কুর রাষ্ট্রবিজ্ঞান ও রাষ্ট্রদর্শনে আইন ও আইনতত্ত্ব সম্পর্কে যে সকল মতবাদ প্রদান করেন সেসবের আলোচনা। তিনি তাঁর বিখ্যাত দ্য স্পিরিট অব লজ গ্রন্থের প্রথমেই আইনের ব্যাখা প্রদান করেছেন। মন্টেস্কু তাঁর বিখ্যাত গ্রন্থ “The spirit of laws” গ্রন্থে আইনের সংজ্ঞা প্রদান করতে গিয়ে বলেন, “Laws are the necessary relations arising from the nature of things.”[১]

মন্টেস্কু আইনের সংজ্ঞাদানের পর আইনের সমাজতাত্ত্বিক ব্যাখা দিয়েছেন। সমাজের সর্বত্র আইন এক নয়। এই বিভিন্নতাই আইনের বৈচিত্র্যের অন্যতম কারণ। জলবায়ু, ভূ-প্রকৃতি, জনগণের পেশা, সরকারের প্রকারভেদ ইত্যাদি আইনের চরিত্র নির্ধারণে সাহায্য করে। মন্টেস্কুর মতে, এ সকল বস্তুবাদী পরিবেশ আইনের মূলনীতি (ইংরেজি: Spirit of Law) স্থির করে। একেই আইনের সমাজতাত্ত্বিক ব্যাখা নামে অভিহিত করা হয়।

মন্টেস্কুর আইনের শ্রেণিবিভাগ

আইনের চরিত্র নির্ধারণ এবং মূলনীতি আলোচনার পর মন্টেস্কু আইনের শ্রেণিবিভাগ করেন। তিনি আইনকে তিন ভাগে ভাগ করেন। এগুলো হলো :

ক. আন্তর্জাতিক আইন,
খ. রাজনৈতিক আইন ও
গ. সামাজিক আইন।

(ক) আন্তর্জাতিক আইন:
বিভিন্ন রাষ্ট্রের মধ্যে সম্পর্কের ভিত্তিতে আন্তর্জাতিক আইনের সৃষ্টি হয়। মন্টেস্কুর মতে, “আন্তর্জাতিক আইন সকল সমাজের জন্য এক ও অভিন্ন, এই আইনের মূল ভিত্তি হলো নিজের স্বার্থকে ব্যহত না করে প্রত্যেকটি জাতি শান্তির সময় সর্বাধিক কল্যাণ সাধন করবে এবং যুদ্ধের সময় যত কম সম্ভব ক্ষতি সাধনের চেষ্টা করবে।”
(খ) রাজনৈতিক আইন:
শাসক ও শাসিতের সম্পর্কের ফলে রাজনৈতিক আইনের উৎপত্তি হয়। মন্টেস্কুর মতে,“রাষ্ট্রের মধ্যে শাসক ও শাসিতের কার্যকলাপ ও সম্পর্কই হলো রাজনৈতিক আইনের বিষয়বস্তু।”
(গ) সামাজিক আইন:
মন্টেস্কুর মতে, “দেশের জনগণের মধ্যে বিরাজমান সম্পর্কের ফলে সামাজিক আইনের জন্ম হয়। তাঁর মতে, “নাগরিকগণ যে আইন দ্বারা পরিচালিত হয় তাকে সামাজিক আইন বলে।”[২]

আরো পড়ুন:  হেগেলের রাষ্ট্রদর্শনে ব্যক্তির স্থান নির্ণয়ের জন্য তাঁর ভাববাদী রাষ্ট্রতত্ত্বের বিশ্লেষণ

মন্টেস্কুর আইনতত্ত্বের সমালোচনা

মন্টেস্কুর আইন সম্পর্কীয় ধারণাকে অনেকেই সমালোচনা করেছেন। নিম্নে তা আলোচনা করা হলো :
i. অধ্যাপক সেবাইন বলেন, “মন্টেস্কু আইনের যে সংজ্ঞা দিয়েছেন তা অস্পষ্ট।” তিনি আরও বলেন, “The Vague formula covers …an ambiguity which he does nothing to clear up.”[৩]
ii. মন্টেস্কুর আইনের যে শ্রেণিবিভাগ করেছেন তা পরিপূর্ণ নয়। কারণ তার শ্রেণিবিভাগকৃত আইন ছাড়া আরও অন্যান্য আইনও রয়েছে।
iii. মন্টেস্কুর আইনের ব্যাখ্যায় মানব জীবনের সবদিকগুলো আলোচিত হয়নি।

পরিশেষে আমরা বলতে পারি যে, যদিও মন্টেস্কুর আইনতত্ত্বের সমালোচনা করা হয়েছে তবুও এ কথা ঠিক যে, তিনিই প্রথম বলেছেন যে, গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থার জন্য রাজনৈতিক শিক্ষা ও অভিজ্ঞতা খুবই প্রয়োজন।

তথ্যসূত্র

১. অনুপ সাদি, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, “মন্টেস্কুর আইনতত্ত্ব আলোচনা প্রসঙ্গে”, রোদ্দুরে ডট কম, ঢাকা, ইউআরএল: https://www.roddure.com/philosophy/theory-of-law-of-montesquieu/
২. মো. আবদুল ওদুদ, “চার্লস দ্য মন্টেস্কু”, রাষ্ট্রদর্শন, মনন পাবলিকেশন, ঢাকা, দ্বিতীয় প্রকাশ; ১৪ এপ্রিল ২০১৪; পৃষ্ঠা ৩২৭-৩২৮।
৩. Professor Sabine, A History of political theory, p 553.

আলোকচিত্রের ইতিহাস: মন্টেস্কু এবং তাঁর স্পিরিট অব লজ বইয়ের প্রথম পাতা। রচনাকাল: ১২ আগস্ট ২০১৯, নেত্রকোনা, বাংলাদেশ।

Leave a Comment

error: Content is protected !!