প্রকৃতির রাজ্য সম্পর্কে হবসের ধারণা হচ্ছে সমাজবিহীন অসভ্য নোংরা

মানব প্রকৃতির উপর ভিত্তি করে টমাস হবস তাঁর প্রকৃতির রাজ্যের (ইংরেজি: Thomas Hobbes‘ state of nature) যে চিত্র অঙ্কন করেছেন, তাতে প্রকৃতির রাজ্য হচ্ছে বিশৃঙ্খল, সমাজবিহীন, অসভ্য, নোংরা, কদর্য ও নিষ্ঠুর। তাঁর প্রকৃতির রাজ্যের ধারণা নিম্নরূপ:

১. ন্যায় অন্যায়ের স্থান ছিল না: প্রকৃতির রাজ্যে প্রত্যেকেরই শত্রু ছিল। তারা সর্বক্ষণ দ্বন্দ্বকলহ, খুন খারাবি ইত্যাদিতে লিপ্ত ছিল। এ রকম ভয়াবহ যুদ্ধাবস্থা সেখানে সবসময়ই বিরাজ করত। এরূপ ভয়ংকর অবস্থায় মানুষের বুদ্ধি বিবেকের চর্চা, যুক্তিকে কাজে লাগাবার অবকাশ সেখানে মোটেই ছিল না। কাজেই ন্যায় অন্যায়বোধ তখন মানুষের মধ্যে ঘটে নি। টমাস হবসের ভাষায়, যেখানে সাধারণ ক্ষমতা নেই, সেখানে আইন নেই, সেখানে বিচারও নেই। অর্থাৎ রাষ্ট্রীয় ক্ষমতাধীন সভ্য সমাজেই একমাত্র ন্যায় অন্যায় বোধ থাকতে পারে। টমাস হবস বর্ণিত প্রকৃতির রাজ্যে মানুষ বন্য পশুদের মত জীবনযাপন করত।

২. সমাজবিহীন অসভ্য অবস্থা: রাষ্ট্র সৃষ্টির পূর্বে মানুষ যে অবস্থায় বাস করত তাকে বলা হতো প্রকৃতির রাজ্য। মানব প্রকৃতির সাথে সঙ্গতি রেখেই টমাস হবস তার প্রকৃতির রাজ্যের বর্ণনা দিয়েছেন। প্রকৃতির রাজ্যে কোনো সমাজব্যবস্থা বা রাজনৈতিক সংগঠন ছিল না। কাজেই নিয়মশৃঙ্খলার অভাবে মানুষ সেখানে অসভ্য ও বর্বর জীবনযাপন করত। জীবনের নিশ্চয়তা বা সুখ স্বাচ্ছন্দ্যের কোনো ব্যবস্থা সেখানে ছিল না। প্রত্যেক মানুষই যেহেতু স্বার্থপর ও লোভী, তাই প্রত্যেকেই নিজ নিজ স্বার্থ ও লোভ চরিতার্থ করতেই ব্যস্ত ছিল।

৩. মানুষের জীবন ছিল নিঃসঙ্গ, কদর্য, নিষ্ঠুর, সংক্ষিপ্ত: টমাস হবস বর্ণিত প্রকৃতির রাজ্যে মানুষের জীবন ছিল পশুতুল্য। তখন কেবল সমাজ বা রাজনৈতিক সংগঠন ছিল না। নিয়মশৃঙ্খলার অভাবে মানুষ সেখানে অসভ্য ও বর্বর জীবনযাপন করত। নিশ্চয়তাবিহীন জীবনে মানুষ একে অপরকে সন্দেহ করত বলে নিঃসঙ্গভাবে জীবনযাপন করত।

৪. সমানে সমানে লড়াই: হবসের প্রকৃতির রাজ্যে কেউ নিজেকে অন্য কারও অপেক্ষা ছোট ভাবত না। তার মতে প্রকৃতির রাজ্যে মানুষ স্বাধীন ও সমান। এ ধারণা থেকেই সবকিছু সমানভাবে পাওয়ার আকাঙ্ক্ষা প্রত্যেকের মনে জাগে। ফলে একই সাথে পাওয়ার আকাঙ্ক্ষা পরস্পরের মধ্যে সংঘাতের সৃষ্টি করে। তারা পরস্পরের সাথে সন্দেহ ও অবিশ্বাসে লিপ্ত হয়। ফলে লাভ, নিরাপত্তা ও খ্যাতির আশায় উভয়ের মধ্যে প্রতিযোগিতা ও প্রতিদ্বন্দ্বিতা চলতে থাকে। হবসের ভাষায়, “War of every man againt every man.”

আরো পড়ুন:  মেকিয়াভেলিবাদ ভীতি সঞ্চার ও বলপ্রয়োগের মাধ্যমে ক্ষমতা আঁকড়ে থাকার নীতি

প্রকৃতির রাজ্য চিন্তার সমালোচনা

রাষ্ট্র সৃষ্টির ক্ষেত্রে সামাজিক চুক্তি মতবাদের প্রেক্ষিতে টমাস হবস মানব প্রকৃতি, ভয়াবহ ও নৈরাজ্যপূর্ণ প্রকৃতির রাজ্যের বর্ণনা দিয়েছেন। এর সবটাই তাঁর নিজস্ব দৃষ্টিভঙ্গি। ফলে টমাস হবসের প্রকৃতির রাজ্য বিভিন্নভাবে সমালোচিত হয়েছে। নিম্নে তা আলোচনা করা হলো:

১. নৃতাত্ত্বিক প্রমাণ নেই: মানুষ যে কোন সময়ে প্রাকৃতিক অবস্থায় বাস করত তার কোন ঐতিহাসিক প্রমাণ নেই। নৃতত্ত্ববিদগণের মতে, আদিম মানুষেরা পর্যন্ত কোনো না কোনো প্রকারের সামাজিক জীবন ও নৈতিক এক সংহতির মধ্যে কালাতিপাত করত।

২. বিকল্প ব্যবস্থা: তার প্রকতির রাজ্য ছিল রাষ্ট্রনৈতিক সমাজের এক বিকল্প ব্যবস্থা। তবে মানুষের যে দাবি তিনি অঙ্কন করেছেন তা যদি সত্য হয়, তবে তাদের আচরণ ও কার্যকলাপকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য প্রয়োজন এক শক্তিশালী শাসক বা শাসকগোষ্ঠীর।

৩. সামাজিক জীব: প্রকৃতির রাজ্য কল্পনাপ্রসূত বলে টমাস হবসের যুক্তিকে খণ্ডন করা চলে না, বরং যদি বলা হয় যে এরিস্টটলের মতানুযায়ী মানুষ সামাজিক এক জীব, তাহলে টমাস হবসের আলোচনা অপ্রাসঙ্গিক বলা যেতে পারে।

৪. মানুষের শ্রেষ্ঠত্বকে অস্বীকার: টমাস হবস মানুষকে জড় পদার্থের সাথে তুলনা করেছেন। আবার কখনও বা জঙ্গলের সাথে। এভাবে মানব প্রকৃতি রাজ্য বিশ্লেষণে তিনি মানুষের শ্রেষ্ঠত্বকে অস্বীকার করেছেন।

৫. কল্যাণকর ও অকল্যাণকর বস্তু: টমাস হবসের মতে, মানুষ কল্যাণকর বস্তুর প্রতি আকর্ষণবোধ করে এবং অকল্যাণকর বস্তুর প্রতি বিতৃষ্ণাবোধ করে। কিন্তু মানুষ কল্যাণকর বস্তুর প্রতি আকর্ষণবোধ না করে অকল্যাণকর বস্তুর প্রতিও আকর্ষণবোধ করতে পারে, তাই মানব প্রকৃতির বিশ্লেষণে তার এ ধারণা ভুল।

৬, ব্যক্তি বিকাশের পথরুদ্ধ করেছেন: টমাস হবস ইচ্ছার স্বাধীনতা অস্বীকার করে ব্যক্তির সুপ্ত বিকাশের পথ বন্ধ করেছেন।

৭. আকাঙক্ষা দ্বারা পরিচালিত: টমাস হবসের মতে, মানুষ আকাঙ্ক্ষা দ্বারা পরিচালিত কিন্তু তার এ ধারণা সঠিক নয়।

৮. পরার্থ গুণকে অস্বীকার: টমাস হবসের মতে, মানুষ স্বভাবতই স্বার্থপর। পরার্থপরতার মত সদগুণকে তিনি অস্বীকার করেছেন।

আরো পড়ুন:  হেগেলের সুশীল সমাজ সংক্রান্ত ধারণা মার্কস ও অন্যান্যদের প্রভাবিত করে

৯. ঐতিহাসিক ভিত্তি নেই: টমাস হবসের প্রকৃতির রাজ্যে মানুষের জীবন বিশ্রী, সঙ্গীহীন, অসহায়, নোংরা, পাশবিক ও ক্ষণস্থায়ী বলে যে বিশ্লেষণ করেছেন তার কোনো ঐতিহাসিক ভিত্তি নেই।

সুতরাং বলা যায়, টমাস হবস মানুষে মানুষে মৌলিক কোনো পার্থক্য না করে জ্ঞানীদের জ্ঞানচর্চাকে নিরুৎসাহিত করেছেন।

উপরিউক্ত আলোচনা শেষে বলা যায় যে, হবস মানব প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক রাজ্য নিয়ে বিশ্লেষণ করে যৌক্তিক মতবাদ প্রদান করেন। তিনি বাস্তব অবস্থার নিরিখে তার চিন্তাধারা উপস্থাপন করেন। সামাজিক চুক্তির প্রেক্ষাপট হিসেবে মানব প্রকৃতি ও প্রকৃতির রাজ্য যুক্তিযুক্ত ছিল।

তথ্যসূত্র

১. ড. রবিউল ইসলাম, মীর মোশাররফ হোসেন ও অন্যান্য, রাজনৈতিক তত্ত্ব পরিচিতি, গ্রন্থ কুটির ঢাকা, পুনর্মুদ্রণ সেপ্টেম্বর ২০১৯, পৃষ্ঠা ৩৮৯-৩৯০।

Leave a Comment

error: Content is protected !!