বিপ্লব কেন হয় বা বিপ্লব সংঘটিত হবার কারণ প্রসঙ্গে

বিপ্লব কেন হয় বা বিপ্লব সংঘটিত হবার কারণ (ইংরেজি: Causes of Revolution) বুঝতে হলে বিপ্লবের সংজ্ঞা থেকে শুরু করা যেতে পারে। বিপ্লবের কারণ তার সংজ্ঞার সঙ্গে অঙ্গাঙ্গিভাবে যুক্ত। চারটি বিপ্লবের সাদৃশ্য বিবেচনা করে ক্রেন ব্রিন্টন The Anatomy of Revolution (১৯৬৫) গ্রন্থে বিপ্লবের একটি তত্ত্ব গড়ে তোলেন। বিপ্লবগুলি হলো ইংল্যান্ডের বিপ্লব (১৬৪০), মার্কিন বিপ্লব (১৭৭৬), ফরাসি বিপ্লব (১৭৮৯) ও রুশ বিপ্লব (১৯১৭)। তার মূল প্রতিবেদন হলো—

  • অর্থনৈতিক সংকট সরকারকে অপদার্থ কর। 
  • অপদার্থতা গুরুত্বপূর্ণ গোষ্ঠীর অগ্রগতির পথে বাধা হওয়ায় হতাশা সঞ্চার করে।
  • অসন্তোষের সৃষ্টি হয়। 
  • বুদ্ধিজীবীদের সঙ্গ ত্যাগ ও সংগঠিত হওয়ার মাধ্যমে অসন্তুষ্টরা রাজনৈতিক ভাবে সক্রিয় হয়।
  • সরকার সফলভাবে সংশোধন আনার প্রচেষ্টা চালায়।
  • শ্রেণি সংগ্রাম জোরালো হয়। 
  • পরিস্থিতির মোকাবিলা করার পদ্ধতি নিয়ে শাসক শ্রেণির মধ্যে বিভাজন সৃষ্টি হয়।
  • সরকারের কার্যকলাপ ক্রমেই আরো বেশি অসংগত হয়ে ওঠে। সংকট বৃদ্ধি পায়। 

এই পর্যায়, ব্রিণ্টনের মতে, বিপ্লব বাতাসে থাকে। লোকে তার কথা আলোচনা করে এবং তখন বিপ্লব ঘটে। 

লুই গটসচক্ ‘Causes of Revolution’ গ্রন্থে বিপ্লব কেন ঘটে তার কারণ হিসাবে বলেন

‘(১) একটি পরিবর্তনের দাবি সেটার কারণ (ক) ব্যাপক প্ররোচনা ও (খ) ঐক্যবদ্ধ জনমত। ও (২) পরিবর্তন সম্পর্কে আশাবাদী, যেটির কারণ আবার (ক) একটি জনপ্রিয় কর্মসূচি ও (খ) বিশ্বস্ত নেতৃত্ব। তবে এই চারটি কারণও কিন্তু এক সাথে কার্যকর হলেও নিজে থেকে বিপ্লব আনতে পারে না। এগুলি দূরবর্তী কারণ..। পাঁচটি কারণের মধ্যে সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ কারণ হলো সংরক্ষণপন্থি শক্তির দুর্বলতা। এটি বিপ্লবের প্রয়োজনীয় প্রত্যক্ষ কারণ।’ 

টেড গুড Why Men Rebel (১৯৭০) বইতে বলেন যে, তুলনামূলকভাবে বঞ্চিত হওয়ার ব্যাপক ধারণা অসন্তোষ সঞ্চার করে। সেই অসন্তোষের রাজনীতিকরণ হয়, যা রাজনৈতিক হিংসার সৃষ্টি করে।

আরো পড়ুন:  রাজনৈতিক অর্থনীতি অধ্যয়নের পরিধি পুঁজিবাদ থেকে সমাজতন্ত্রে উত্তরণ অবধি

চার্লস টিলি From Mobilization to Revolution, (১৯৭৮) গ্রন্থে এবং থিড়া স্কচুপল States and Social Revolutions (১৯৭৯) গ্রন্থে যে কারণগুলিকে গুরুত্ব দেন সেগুলি হলো—রাষ্ট্র দুর্বল হওয়া, ব্যাপক বিরোধিতার সৃষ্টি হওয়া ও বিপ্লবী শক্তির সাফল্যের সম্ভাবনা। কোন ঐতিহাসিক প্রেক্ষিতে এই কারণগুলি উঠে আসে সেগুলির উপর জোর দেওয়া হয়।

১৯৬৬ তে Chalmer Johnson-এর গুরুত্বপূর্ণ কাজ Revolutionary Change প্রকাশিত হয়। ব্রিন্টনের The Anatomy of Revolution-এর এক বছর পর। তিনি বিপ্লবকে অ-সামাজিক বলে আখ্যা দেন। এই ধরনের ঘটনা সেখানেই ঘটে যেখানে মূল্যবোধের সহমত আর নেই। অর্থাৎ যে সমাজে ভারসাম্য নষ্ট হয়ে গেছে। বিপ্লব ঘটে এবং সফল হয় কারণ রাজনৈতিক নেতৃত্ব তার কাজ করতে ব্যর্থ হয়।

জনসন মনে করেন বিপ্লব ঘটার প্রয়োজন নেই, এবং সফল হওয়ারও দরকার নেই। ভি আই লেনিন বলেন, ‘যখন তীব্র শ্রেণিসংগ্রামের দ্বারা চালিত লক্ষ লক্ষ মানুষ শ্রেণি সচেতনতা, ইচ্ছাশক্তি, আবেগ ও স্বপ্ন বলে সমস্ত শক্তি সঞ্চয় করে তা প্রয়োগ করে তখন বিপ্লব ঘটে।’ [Left Wing Communism: An Infantile Disorder.] তার কাছে বিপ্লবের মূল নীতি হলো—

‘বিপ্লবের পক্ষে এটাই যথেষ্ট নয় যে শোধিত আবদমিত জনগণ মনে করে আগের মত অবস্থায় থাকা সম্ভব নয় এবং পরিবর্তন দাবি করে। বিপ্লবের জন্য প্রয়োজন সেই পরিস্থিতি যেখালে শোষণকারীরা আর আগের মতন করে আর বাঁচতে বা শাসন করতে পারবে না। একমাত্র যখন নিম্নবর্গরা আগের পথটা চায় না আর উচ্চশ্রেণিরা আগের প্রক্রিয়ায় চালাতে পারে না—শুধু তখনই বিপ্লব সফল হতে পারে।’ 

আন্দোলনের প্রক্রিয়ায় সমাজের কিছু সমস্যা সমাধান করতে পারার দাবি খেকেই বিপ্লবী এলিট-এর বৈধতা সৃষ্টি হয় |

জ্যাক গোল্ডস্টোন Revolution and Rebellion in the Early Modern World, (১৯৯১) গ্রন্থে বিপ্লব কেন এবং বিপ্লবের উৎস অনুসন্ধান করতে গিয়ে তিনটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান যার সমন্বয়ে বিপ্লব হয় সেগুলিকে চিহ্নিত করেন। প্রথমত, রাষ্ট্রের সম্পদের সংকট। দ্বিতীয়ত, এলিটদের মধ্যে বিভাজন। রাষ্ট্রের সঙ্গে দূরত্ব সৃষ্টি হওয়ায় এলিটরা আলাদা আলাদা গোষ্ঠীতে বিভক্ত হয়ে প্রতিটি গোষ্ঠীই নিজে সরকার নিয়ন্ত্রণের প্রচেষ্টা চালায়। তৃতীয়ত, ব্যাপক আকারে জনগণের সংগঠিত হওয়ার সম্ভাবনা। যখন এই তিনটি পরিস্থিতি এক সাথে উপস্থিত তখন গোল্ডস্টোনর মতে, বিপ্লবী সংকট সৃষ্টি হয়।

আরো পড়ুন:  লেনিনবাদী সংগ্রামের রূপ হচ্ছে লেনিন কর্তৃক রচিত সংগ্রামের বিভিন্ন সূত্রাবলি

তথ্যসূত্র

১. দেবী চ্যাটার্জী, রাষ্ট্রচিন্তার বিষয়সমূহ, নেতাজী সুভাষ মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়, তৃতীয় পুনর্মুদ্রণ ডিসেম্বর ২০১৯, পৃষ্ঠা ১৩৪-১৩৫।

Leave a Comment

error: Content is protected !!