প্লেটোর রচনাবলী বা প্রকাশনা সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত আলোচনা

প্লেটোর রচনাবলী (ইংরেজি: Books of Plato) বা প্রকাশনা হচ্ছে গ্রিসের দাস যুগের দার্শনিক প্লেটো রচিত সংলাপসমূহ যা পরবর্তীতে পুস্তক আকারে বহুভাবে প্রকাশিত। প্রাচীন গ্রিসে প্লেটোই একমাত্র দার্শনিক যিনি তাঁর দার্শনিক চিন্তাসমূহ সুসংহতভাবে পুস্তক আকারে লিখে গিয়েছিলেন। তাঁর লিখিত গ্রন্থগুলোর অধিকাংশই তাঁর শিক্ষক সক্রেটিস এবং সক্রেটিসের ছাত্র ও বন্ধুদের মধ্যে কথোপকথনের আকারে রচিত।  

পঁয়ত্রিশটি সংলাপ এবং তেরোটি চিঠিকে (the Epistles) ঐতিহ্যগতভাবে প্লেটোর রচনাবলী বলে আরোপ করা হয়েছে, যদিও আধুনিক গবেষকগণ এইগুলির মধ্যে কয়েকটির সত্যতা নিয়ে সন্দেহ করে। প্লেটোর লেখাগুলো বেশ কয়েকটি ধরনে প্রকাশিত হয়েছে; এর ফলে প্লেটোর গ্রন্থগুলির নামকরণ এবং তথ্যসূত্র সম্পর্কিত বেশ কয়েকটি রীতির চালু হয়েছে।

প্লেটোর রচনাবলী

নিম্নে প্লেটো রচিত প্রধান গ্রন্থগুলোর নাম ও বিষয় উল্লেখ করা হলও।

১. এপোলজি (Apology) তে সক্রেটিসের অভিযোগের স্বঘোষিত আপোষহীন জবাব রয়েছে,

২. ক্রিটো (Crito) তে সক্রেটিসকে একজন বিশ্বস্ত রাজভক্ত হিসেবে দেখানো হয়েছে ;

৩. ইউথ্রিফ্রন (Euthyphron) ধর্মের প্রকৃতি,

৪. ল্যচেস (Laches) এ সাহসিকতা,

৫. আইয়নে (Ion) অনুধ্যানবিহীন সেনাপতি ও কবি ব্যক্তি সম্পর্কিত,

৬. প্রোটাগোরাস (Protagoras) এ তাঁর অযথার্থবাদ ও সক্রেটিসের যথার্থবাদের আলোচনা,

৭. চারমাইডিস (Charmydes) মিতাচার সম্পর্কে,

৮. লাইসিস (Lysis) বন্ধুত্ব সম্পর্কে,

৯. রিপাবলিক (Republic) আদর্শ রাষ্ট্রের বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে,

১০. জর্জিয়াস (Gorgias) জ্ঞান ও শক্তির তুলনামূলক উৎকৃষ্টতা সম্বন্ধে,

১১. মেনো (Meno) সত্যতা ও জ্ঞানের মাত্রাভেদ, সহজাত ও লৌকিক ধারণার প্রয়োগিক মূল্য সম্পর্কে,

১২. ইউথিডেমাস (Euthydemus) সোফিস্টদের ক্ষেত্রে সঠিক আদর্শগত মানদÐ বিষয়ক,

১৩. ক্রেটিলাস (Cratylus) ভাষাতত্ত¡ সম্পর্কে,

১৪. সিম্পোজিয়াম (Symposium) জ্ঞান ও সৌন্দর্যের ক্ষেত্রে সার্বিক প্রত্যয়ের ভূমিকা,

১৫. ফিডো (Phaedo) আত্মার অমরতা,

১৬. ফিড্রাস (Phaedrus) তার্কিকদের বিচারের প্রতিবাদ,

১৭. থিয়্যাটিটাস (Theaetetus) রাষ্ট্র ও দর্শন তথা ইন্দ্রিয়লব্ধ ও বৌদ্ধিক জ্ঞানের অসঙ্গতি সম্পর্কে,

আরো পড়ুন:  প্রাচীন গ্রিক দর্শন রোম সাম্রাজ্য এবং প্রাচীন গ্রিসে খ্রিস্টপূর্ব ষষ্ঠ শতাব্দীর দর্শন

১৮. পারমেনাইডিস (Parmenides) সত্তা ও জগতের সম্পর্ক,

১৯. সোফিস্ট (Sophist) তাদের ইন্দ্রিয়লব্ধ বিচ্ছিন্ন জ্ঞানের অসারতা এবং সার্বিক প্রজ্ঞালব্ধ জ্ঞানের যৌক্তিকতা প্রদর্শিত হয়,

২০. ফাইলিবাস (Philebus) সুখ ও শুভের ধারণা,

২১. টাইমীয়াস (Timaeus) সৃষ্টিতত্ত¡ এবং

২২. লজ (Laws) রিপাবলিকে স্বীয় মন্তব্যের আংশিক প্রত্যাহার এবং রাষ্ট্র ও আইন বিষয়ে মূল্যবান আলোচনা সংযোজিত হয়েছে।[১]

তথ্যসূত্র

১. মো. আবদুল ওদুদ, “প্লেটো”, রাষ্ট্রদর্শন, মনন পাবলিকেশন, ঢাকা, দ্বিতীয় প্রকাশ; ১৪ এপ্রিল ২০১৪; পৃষ্ঠা ৪৯।

Leave a Comment

You cannot copy content of this page