ওয়ার্ডসওয়ার্থ প্রদত্ত প্রকৃতির বর্ণনা হচ্ছে মানুষ ও প্রকৃতির বন্ধন সম্পর্কে দৃষ্টিভঙ্গি

ওয়ার্ডসওয়ার্থ বা কবি উইলিয়াম ওয়ার্ডসওয়ার্থ প্রদত্ত প্রকৃতির বর্ণনা (ইংরেজি: Treatment of nature by Wordsworth) হচ্ছে মানুষ ও প্রকৃতির বন্ধন সম্পর্কে কবির দার্শনিক দৃষ্টিভঙ্গি। কবি ওয়ার্ডসওয়ার্থ ছিলেন তার বয়সের সবচেয়ে প্রকৃত প্রতিভাধর এবং তার শতাব্দীর কাব্যিকতার উপর তার কোনো সহকর্মীর চেয়ে অধিক ক্ষমতা ছিল। উইলিয়াম ওয়ার্ডসওয়ার্থের প্রকৃতির প্রতি ভালবাসা তার কবিতায় প্রতিফলিত হয়েছিল এবং তিনি দাবি করেছিলেন যে জীবনের ছোট ছোট জিনিসগুলি লক্ষ্য করা এবং উপভোগ করা থেকেই সুখ আসে।

উইলিয়াম ওয়ার্ডসওয়ার্থ শৈশবকাল থেকেই, প্রকৃতির সুন্দর বস্তুর সাথে ঘনিষ্ঠভাবে বসবাস করতেন, কিন্তু সেই সময়ে তিনি বুঝতে পারেননি যে এই চরিত্রগুলির দ্বারা তাঁর চরিত্র গড়ে উঠেছে।শৈশব থেকেই প্রাকৃতিক জগতের প্রতি তার সাড়া দেয়ার ধরন পরিবর্তিত হয়েছে, কিন্তু তার প্রকৃতির প্রতি ভালোবাসা অপরিবর্তিত বা আরও বেশি বেড়েছে। প্রাপ্তবয়স্ক হবার পরে প্রকৃতির প্রতি সাড়া দেয়া কবিকে তার নিজস্ব ধরনের সন্তুষ্টি প্রদান করে। কবি তার ‘Ode to Immortality’ কবিতায় বলেছেন:

“I only have relinquished one delight
To live beneath your more habitual sway.”

এখানে, কবি স্বীকার করেছেন যে তিনি যা অর্জন করেছেন তা তার সহকর্মী মানুষের মৃত্যু ও ভোগান্তির প্রতি একটি নতুন সংবেদনশীলতা। কোমল সহানুভূতির এই গুণটি ‘Ode to Immortality’ এর শেষের লাইনগুলিতে বেশ স্পষ্ট:

“To me the meanest flower that blows can give
Thoughts that do often lie too deep for tears.”

ওয়ার্ডসওয়ার্থ বিশ্বাস করতেন যে প্রকৃতি হলো জ্ঞান ও মহৎ ধারণার উৎস এবং তিনি তার কবিতায় এবং বিশেষ করে “Tintern Abbey”-তে এর প্রতিফলন ঘটান। কবিতার শেষের দিকে ওয়ার্ডসওয়ার্থ বলেন যে, প্রকৃতির কাছে তিনি একজন শিক্ষানবিশ:

আরো পড়ুন:  Because I could not stop for Death কবিতার সারসংক্ষেপ ও বিশ্লেষণ

“…she can so inform. 
The mind that is within us, so impress. 
With quietness and beauty and so feed
With lofty thoughts.”

আমরা দেখতে পাচ্ছি যে ওয়ার্ডসওয়ার্থের প্রকৃতির প্রতি বিশাল শ্রদ্ধা রয়েছে। তিনি ইচ্ছাকৃতভাবে আমাদের মনে করিয়ে দেন যে তিনি প্রকৃতির সাথে তার অতীতকে পাহাড়ের উপর আবদ্ধ “হরিণ” হিসাবে বর্ণনা করে। এই ছবিটি অবিলম্বে আমাদের এই ধারণা দেয় যে ওয়ার্ডসওয়ার্থ কেবল প্রকৃতির অভিজ্ঞতা উপভোগ করেননি বরং তিনি আসলে এর একটি অংশ। তার নিজ অতীত বর্ণনা করার সময়, তিনি প্রকৃতির সাথে দূরত্ব এবং সম্পূর্ণ একাকীত্বের অনুভূতি তৈরি করেন।

কবি তার অনুভূতি প্রকাশ করেছেন ‘Ode to Immortality’ কবিতায়:

“The Rainbow comes and goes,
And lovely is the Rose,
The Moon doth with delight.”

তার মনে আছে যে একটি বিশেষ এলাকা এবং একটি বিশেষ ফুল তাকে স্বর্গীয় শান্তি দিয়েছে এবং তার শৈশবকালে মন্ত্রমুগ্ধ করেছিল। কবি আরও উপলব্ধি করেন যে সমস্ত পাখি, প্রাণী এবং সৃষ্টি শৈশবে উন্মাদনাকে আনন্দদায়ক করে তুলেছিল, কিন্তু বয়স বাড়ার সাথে সাথে সেসব আর তাঁকে প্রলুব্ধ করেন না। কবি স্মৃতিচারণ করে বলেছেন:

“That there hath past away a glory from the earth.”

তার শৈশবকালে, তার জীবন সম্পর্কে কোন দুঃখজনক অভিজ্ঞতা ছিল না এবং মানুষের যন্ত্রণা সম্পর্কে কোনো ধারণা ছিল না এবং সেই সময় পর্যন্ত তার সমালোচনামূলক দৃষ্টিভঙ্গি বা দার্শনিক মন ছিল না।

এইভাবে উপসংহারে আসা যায় যে ওয়ার্ডসওয়ার্থ তাঁর “Immortality Ode” এবং “Tintern Abbey” কবিতায় মানুষ এবং প্রকৃতির মধ্যে একটি অনন্য বন্ধনকে শিল্প এবং কাব্যিক উচ্চারণে দারুণ দক্ষতার সাথে চিত্রিত করেছেন।

Leave a Comment

error: Content is protected !!