রোমান্টিক কবিতা হচ্ছে রোমান্টিকতাবাদী সাহিত্য আন্দোলন থেকে উদ্ভূত কবিতা

রোমান্টিক কবিতা (ইংরেজি: Romantic poetry) হচ্ছে রোমান্টিকতাবাদী সাহিত্য আন্দোলন থেকে উদ্ভূত রোমান্টিক যুগের কবিতা। রোমান্টিকতাবাদী সাহিত্য আন্দোলন অষ্টাদশ শতকের শেষদিকে ইউরোপে উদ্ভূত হয়েছিল। এটি অষ্টাদশ শতাব্দীর প্রচলিত আলোকায়ন যুগের ধারণার বিরুদ্ধে একটি প্রতিক্রিয়া হিসেবে চালু হয় এবং আনুমানিক ১৮০০ থেকে ১৮৫০ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত স্থায়ী হয়েছিল।

উইলিয়াম ওয়ার্ডসওয়ার্থ (Wordsworth) ও স্যামুয়েল টেইলর কোলরিজ (Coleridge )-এর যুগ প্রচেষ্টায় ১৭৯৮ খ্রীস্টাব্দে প্রকাশিত কাব্য-সংকলন “লিরিক্যাল ব্যালাডস” (Lyrical Ballads ) সেই রোমান্টিক আন্দোলনের সূচক। এই গ্রন্থের পরবতী সংস্করণে সংযোজিত মুখবন্ধে ওয়ার্ডসওয়ার্থ নতুন প্রজন্মের কবিতার বিষয়বস্তু, ভাষা ও কাব্যশৈলী ইত্যাদি বিষয়ে মতামত তথা পরিকল্পনা উপস্থাপিত করেছিলেন। এক অপার বিস্ময়বোধ, সৌন্দর্যপিপাসা, প্রকৃতি প্রেম, মানব প্রীতি, কল্পলোকের প্রতি আসক্তি এবং সর্বোপরি কাব্যভাষা ও প্রকরণের ক্ষেত্রে অষ্টাদশ শতকের নিয়ম শৃঙ্খল থেকে মুক্তি—এই সবই ছিলো রোমান্টিক কাব্য তথা অন্যতর সাহিত্যের উল্লেখনীয় বৈশিষ্ট্য।

রোমান্টিক যুগের সাহিত্য তথা রোমান্টিকতার বৈশিষ্ট্যসমূহ, যুগ প্রভাব ও প্রেক্ষিত বিষয়ে স্বতন্ত্র অধ্যায়ে বিস্তৃত আলোচনা আছে। বর্তমান অধ্যায়ে তাই এই যুগ পর্বের একটি সংক্ষিপ্ত সমীক্ষা উপস্থিত করা হলো। অগ্রজ কবিদের মধ্যে ওয়ার্ডসওয়ার্থ ও কোলরিজের কথা বলা হয়েছে। ওয়ার্ডসওয়ার্থের প্রকৃতি চেতনা ও কোলরিজের অতিপ্রাকৃতের রহস্য রোমান্টিক কাব্য সাহিত্যের দুই স্থায়ী আকর্ষণ। 

তাঁদের অগ্রজ কবি ছিলেন উইলিয়াম ব্লেক, যিনি কবিতায় সাধারণ মানুষকে এনেছিলেন। তাঁদের অনুজ কবিদের মধ্যে ছিলেন লর্ড বায়রন (Byron ), পার্সি বিসি শেলী (Shelley) ও জন কিটস, (Keats)। গাথাকাব্য ও ব্যঙ্গকাব্য রচনায় বায়রনের সাফল্য ছিলো প্রশ্নাতীত। শেলীর কাব্যের মূল সুর মানবিক দুঃখ-যন্ত্রণাকে অতিক্রম করার আকাঙ্ক্ষা-পালিত এক অবিচল আদর্শবাদের সুর। মুক্তি ও স্বাধীনতার জন্য, প্রেম ও পুনরুজ্জীবনের জন্য তাঁর আকুতি শেলীর কাব্যকে এক স্বতন্ত্র মহিমা দিয়েছে। 

আরো পড়ুন:  রোমান্টিকতাবাদ শৈল্পিক, সাহিত্যিক, সাংগীতিক এবং মনীষাগত আন্দোলন

ইন্দ্রিয়গ্রাহ্য জগতের সৌন্দর্য ও মনোরমতাকে কীটসের কবিমন যেভাবে উপভোগ ও প্রকাশ করেছে তেমনটি রোমান্টিক কাব্যের ইতিহাসে অদ্বিতীয়। গ্রীক পুরাণ ও বর্ণগন্ধস্পর্শগ্রাহ্য প্রকৃতি জগত, এ দুয়ের প্রতি কীটসের ছিলো দুর্বার আকর্ষণ। চিত্রকল্পের কারুকাজে, গীতি মাধুর্যে, সৌন্দর্য ও নিত্যতার দ্বন্দ্ব দর্শনে কীটসের কবিতা এক বিস্ময় ভাণ্ডার। এই যুগের অপরাপর কবিদের মধ্যে নাম করা যেতে পারে রবাট সাউদি (Southey), টমাস ক্যাম্পবেল (Campbell), টমাস মুর (Moore), জন ক্লেয়ার (Clare) প্রমুখের।

আলোকচিত্রের ইতিহাস: ফরাসি চিত্রকর লুই জ্যাঁমটের ১৮৫৪ খ্রিস্টাব্দে অংকিত পাহাড়চূড়ায় আত্মার কবিতা

তথ্যসূত্র

১. কুন্তল চট্টোপাধ্যায়, ইংরাজী সাহিত্যের ইতিহাস, রত্নাবলী, কলকাতা, দ্বিতীয় সংস্করণ জানুয়ারি ১৯৫৯, পৃষ্ঠা ১৭-১৮।  

Leave a Comment

error: Content is protected !!