বাংলার ইতিহাসে ভৌগোলিক উপাদান বা ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্যাবলীর প্রভাব

বাংলার ইতিহাসে ভৌগোলিক উপাদান বা ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্যাবলীর প্রভাব (ইংরেজি: Influence of Geographical factors on History of Bengal) বলতে বোঝানো হয় ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্য যেসব ক্ষেত্রে বাংলার ইতিহাসে প্রভাব বিস্তার করে সেসব উপাদানসমূহ। বাংলার ভৌগোলিক পরিচয় থেকে এ অঞ্চলের ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্যগুলো খুঁজে পাওয়া যায়। প্রথমত, গাঠনিক ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়ায় বাংলা ভূ-খন্ডের অস্তিত্ব বা অবস্থান উপমহাদেশের সর্বপূর্বান্তে নির্ধারিত হয়েছে। দ্বিতীয়ত, ভূ-তাত্ত্বিকভাবে বাংলা সুগঠিত ভূ-ভাগ এবং অপেক্ষাকৃত নবীন ভূ-ভাগের সমন্বয়ে সৃষ্ট। তৃতীয়ত, বাংলা পৃথিবীর বৃহত্তম ব-দ্বীপ বা ‘ডেল্টা’। চতুর্থত, বাংলা মৌসুমী জলবায়ুর দেশ, বৃষ্টিবহুল অঞ্চল। পঞ্চমত, এর দক্ষিণে উন্মুক্ত সমুদ্রদ্বার এবং অঞ্চলটি নদী বহুল। এ সকল বৈশিষ্ট্য বাংলার ইতিহাসে বহুমুখী প্রভাব বিস্তার করেছে।

বাংলার ইতিহাসে ভৌগোলিক উপাদান ও তার প্রভাব

মানুষ প্রকৃতির ওপর শর্তবদ্ধ এবং তাঁর কার্যাবলি কখনোই পরিবেশের প্রভাবকে এড়িয়ে চলতে পারে না। এ মন্তব্যটির যথার্থতা বাংলার ক্ষেত্রেও প্রমাণিত হয়। বাঙালির সমাজ জীবনের বৈচিত্র্য, সাংস্কৃতিক স্বাতন্ত্র, ধর্মীয় জীবনের স্বকীয়তা, এমনকি রাজনৈতিক জীবনের ওপরও ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্যাবলী গভীরভাবে প্রভাব বিস্তার করেছে। অবস্থানগত কারণে বাংলায় অনার্য প্রভাব প্রাধান্যের বিষয়টি আজ প্রমাণিত সত্য। আর্য প্রবাহ পথ থেকে দূরে থাকায় বাংলার জীবন যাত্রার ওপর অনার্য সংস্কৃতি দৃঢ় হবার সুযোগ পেয়েছে। উত্তরপশ্চিম ভারত যতটা আর্যায়িত হয়েছে বাংলা ঠিক ততোটা হয়নি। বাংলার “ভৌগোলিক ব্যক্তিত্বে” তাই দেশজ উপাদান উপকরণের প্রভাব অনেক বেশি। প্রাচীন বাংলার ধর্মীয় সংস্কৃতিতেও ভৌগোলিক প্রভাব পরিলক্ষিত হয়। এখানকার ধর্মীয় জীবনে “মানবতা” ও “উদারতা” প্রাধান্য বিস্তার করে আছে। প্রাচীন বাংলায় বৌদ্ধ ধর্মের আগমন, বিস্তার, ধর্মীয় সহিষ্ণুতা, বৌদ্ধধর্মের বিকৃতিকরণ, হিন্দু ধর্মের সাথে আপোষ, মূর্তি পূজার প্রচলন, কিংবা পরবর্তীকালে ইসলাম ধর্মের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি, মাজার সংস্কৃতির প্রাধান্য, পীর, সুফিদের প্রতি ভক্তি ইত্যাদি ঘটনা বাংলার “আঞ্চলিক ব্যক্তিত্ব”কেই তুলে ধরে।

আরো পড়ুন:  রংপুর কৃষক বিদ্রোহ হচ্ছে ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে উত্তরবঙ্গের অন্যতম বিদ্রোহ

বাংলার শিল্পকলার ক্ষেত্রে স্বকীয়তা ও এ অঞ্চলের ভৌগোলিক উপাদানের মাধ্যমেই নির্ধারিত হয়েছে। যেমন বাংলার বিশেষ ধরনের মাটি, পোড়ামাটির শিল্প, অলংকৃত ইট তৈরিতে সাহায্য করেছে যা প্রাচীন শিল্পকলায় অনন্য হিসেবে চিহ্নিত হয়ে থাকে। এছাড়া বাঁশের ব্যবহারও শিল্পকলায় স্বকীয়তা দান করেছে।

প্রাচীন যুগ থেকেই বাঙলার অর্থনৈতিক জীবনে ভূগোলের দান অপরিসীম। কৃষি, শিল্প এবং ব্যবসাবাণিজ্যের সবটুকুই ভৌগোলিক অবস্থান ও পরিবেশের ওপর ছিল নির্ভরশীল। বাংলার অবস্থান, মৌসুমী জলবায়ু, অসংখ্য নদ-নদী এ অঞ্চলকে উর্বর কৃষিক্ষেত্রে পরিণত করেছে। ধান, ইক্ষু, আম, ডালিম, কলা, গুবাক, কাঁঠাল ইত্যাদি এখানকার প্রাচীন ভূমিজাত দ্রব্য। নদী, বন্যা ও মৌসুমী জলবায়ু বিপুল ধান উৎপাদনে সহায়ক ছিল। তবে এই তিনটি বৈশিষ্ট্য বাঙালি চরিত্রে “পরিশ্রমী” প্রবণতাও যুক্ত করেছে। ধান, কার্পাস, চিনি, লবণ ইত্যাদি শিল্প প্রাচীনকালে বিকশিত হয়।

বাংলার বস্ত্র শিল্পের খ্যাতি প্রাচীনকাল থেকেই পৃথিবীব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছিল। এছাড়া নৌ-শিল্পেও বাংলার অগ্রগতি ছিল দৃষ্টান্তমূলক। ব্যবসা-বাণিজ্যে বাঙালি ভৌগোলিক সুবিধার সদ্ব্যবহার করেছে। নদ-নদী এবং উন্মুক্ত সমুদ্র দ্বারের কারণে বাংলা বৃহত্তর বাণিজ্য বলয়ের সঙ্গে সহজেই যুক্ত হয়েছে। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সাথে বাংলার ছিল গভীর বাণিজ্যিক সম্পর্ক। এছাড়া আরবের বণিকেরাও এ অঞ্চলের সাথে বাণিজ্যিক সম্পর্ক বজায় রেখেছে।

রাজনৈতিক দিক থেকেও ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্যাবলী বাংলাকে সুরক্ষিত করেছে। সর্বভারতীয় সাম্রাজ্যবাদী শক্তি প্রাকৃতিক বাধার কারণে পূর্বাঞ্চলের দিকে অভিযান প্রেরণে খুব একটা আগ্রহী ছিল না। এ অঞ্চলের জলবায়ু, নদ-নদী, স্যাঁতস্যাতে আবহাওয়া ছিল তাদের অনাগ্রহের অন্যতম কারণ। এ সুযোগে বাংলার স্বকীয় রাজনৈতিক সত্তার বিকাশ ঘটতে পেরেছে।

অবশ্য ভারতীয় রাজশক্তির আগ্রাসন একেবারে যে হয়নি তা নয়। অল্প সময়ের জন্য হলেও সর্বভারতীয় সাম্রাজ্যের কুফল বাংলা ভোগ করেছে। দিল্লির মোগল সম্রাটেরা বাংলাকে লুট করেছে। বাংলার আঞ্চলিক রাজনৈতিক শক্তিগুলো তাদের দীর্ঘকালীন শাসনে বাঙালি সংস্কৃতির নির্মাণে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ভূমিকা রেখেছেন।

বাংলার ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্যাবলীও এদেশের ইতিহাসকে যুগ যুগ ধরে প্রভাবিত করেছে। বাংলারও রয়েছে পৃথক ভৌগোলিক সত্তা এবং ঐতিহাসিক সত্তা। অবস্থানগত বিবেচনায় বাংলা ভারতের সর্ব পূর্ব প্রান্তে অবস্থিত। নদ-নদী, ভূ-গঠন, ব-দ্বীপ, মৌসুমী জলবায়ু, উন্মুক্ত সমুদ্রদ্বার সবকিছুই বাংলার ইতিহাসে স্বকীয় মাত্রা যুক্ত করেছে। বাংলার সাংস্কৃতিক জীবনের স্বকীয়তার প্রশ্নে ভৌগোলিক প্রভাব গভীরভাবে সম্পর্কিত।

Leave a Comment

error: Content is protected !!