চীনা ইতিহাসের রাজবংশগুলি ছিল বংশগত রাজতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থা

চীনা ইতিহাসের রাজবংশ বা চীনা রাজবংশগুলি (ইংরেজি: Dynasties in Chinese history, or Chinese dynasties) ছিল বংশগত রাজতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থা যা চীনের ইতিহাসের বেশিরভাগ সময় শাসন করেছিল। আনুমানিক ২০৭০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে ইউ দ্য গ্রেটের রাজবংশীয় শাসনের উদ্বোধন থেকে শুরু করে ১২ ফেব্রুয়ারি ১৯১২ সালে সিনহাই বিপ্লবের পরিপ্রেক্ষিতে জুয়ানটং সম্রাটের পদত্যাগ পর্যন্ত, চীন ধারাবাহিক রাজবংশ দ্বারা শাসিত হয়েছিল।

চীনদেশে প্রচলিত উপকথা অনুসারে প্রাচীনতম রাজাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিলেন ফু-সি (Fu-Hsi) শেন নুং (Shen Nung) এবং হুয়াং তি (Huang Ti)। এরা ছিলেন একাধারে রাজা ও ধর্মগুরু। চীনের প্রাচীনতম ইতিহাসভিত্তিক সাহিত্য সু-তিং (Shu Ching) এ চতুর্থ সম্রাট ইয়াও-এর যুগ থেকে প্রাচীন চীনের রাজাদের কথা বলা আছে। ইয়াং-এর পর সুন ও তারপর রাজা হন ই-উ (Yu)। খ্রিস্টপূর্ব ২১৭৬, মতান্তরে ২২০৫ অব্দে ইউ সিয়া (Hsia) রাজবংশের পত্তন করেন। পরবর্তী রাজবংশ ছিল চেৎ ট্যাং প্রতিষ্ঠিত সান বা ইন (Shan/Yin)।

খ্রিস্টপূর্ব ১১২২ অব্দে প্রতিষ্ঠিত চৌ (Chau) বংশ দীর্ঘ ৯০০ বছর চীন শাসন করে। এই সময়েই লাওজু ও কনফুসিয়াসের জন্ম হয়। চৌএর পর ছিল প্রথম সার্বভৌম সম্রাট শি হুয়াং তি (Shi Huang Ti)-র চিন বংশ, যার নামানুসারেই ঐ দেশের নাম হয় চীন। চীনের মহাপ্রাচীর এই সম্রাটই নির্মাণ করেছিলেন।

চীন বংশের পর আসে হান বংশ (Han, খ্রিস্টপূর্ব ২০৬খ্রি. ২২০)। এই সময় চীনের ইতিহাসের একটি স্বর্ণযুগ। সাহিত্য, বিজ্ঞান, শিল্প, ললিতকলা, সব ক্ষেত্রেই সমৃদ্ধি আসে। চান্দ্র পঞ্জিকার প্রবর্তন, ভূমিকম্প নির্দেশক যন্ত্র, পাণ্ডুলিপি সংগ্রহ, জীর্ণ বস্ত্র থেকে কাগজ তৈরি—এইসব এই সময়ের ঘটনা। এই কারণেই বোধহয় বহু চীনা নিজেদের “Sons of Han” বলতে ভালোবাসেন।

হান বংশের পর আসে ট্যাং (Tang) বংশ (৬১৮-৯০৭), কিন্তু তারপর দীর্ঘ রাজনৈতিক, অনিশ্চয়তার কাল। অবশেষে ৯৬০-এ সুং (Sung) বংশের আমলে স্থিতি আসে বটে, কিন্তু ১২৭৯ তে মোঙ্গলরা চীন দখল করে এবং মোঙ্গল শাসন বজায় থাকে ১৩৬৮ সাল পর্যন্ত।

আরো পড়ুন:  চীনা গৃহযুদ্ধ চীনের কুওমিনতাং ও কমিউনিস্ট পার্টির মধ্যে চলা গৃহযুদ্ধ

১৩৫৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় মিং (Ming) বংশের শাসন, কিন্তু ১৬৪৪-এ মাঞ্চুরিয়ার অরণ্য থেকে এসে মাউপজাতি চীনে নতুন রাজবংশ স্থাপন করে। বেজিং-এ রাজধানী বসিয়ে এই মাঞ্চু বা চিং (Ching)-রাই ১৯১১-র বিপ্লবের আগে পর্যন্ত চীন শাসন করে।

দশজন মাঞ্জু সম্রাটের মধ্যে কাং সি (Kang-hsi, ১৬৬২-১৭২২) ছিলেন সবচাইতে উল্লেখযোগ্য। ফরাসি সম্রাট চতুর্দশ লুই-এর ভারতের মুঘল সম্রাট আওরঙ্গজেবের সমসাময়িক কাং সি উদারচেতা শাসক হিসেবে বিখ্যাত ছিলেন। কনফুসীয় নীতিধর্মে আস্থাবান হয়েও তিনি তাওবাদ বৌদ্ধধর্মকে, এমনকি পর্তুগিজ পাদ্রীদের খ্রিস্টধর্মকেও যথেষ্ট সম্মান দেখান। কয়েকজন জেসুইট খ্রিস্টান পাদ্রীকে তিনি সরকারি কাজেও নিয়োগ করেছিলেন। অবশ্য পাদ্রীদের পরবর্তী স্বার্থসন্ধানে বিরক্ত হয়ে ১৭১৭ সালে বিদেশিদের ওপর নানা বিধিনিষেধ আরোপ করেছিলেন।

চীনা রাষ্ট্রব্যবস্থায় রাজবংশের স্থান ছিল খুবই উঁচুতে। সম্রাটের ঐশ্বরিক ক্ষমতায় বিশ্বাস করা হতো, তাকে বলা হত ‘স্বর্গের বরপুত্র’। সম্মান ও অধীনতার একটি রূপ হিসাবে, চীনা করদ-রাজ্যগুলি চীনা রাজবংশকে “Tiāncháo Sàngguó” (天朝上國; “উচ্চ রাজ্যের স্বর্গীয় রাজবংশ”) বা “Tiāncháo Dàguó” (天朝大國 ; মহান রাজ্যের স্বর্গীয় রাজবংশ; “) বলা হতো।

তথ্যসূত্র

১. অলোক কুমার ঘোষ, “চীনের ইতিহাস”, নেতাজী সুভাষ মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়, কলকাতা, ষষ্ঠ মুদ্রণ মে ২০১০, পৃষ্ঠা ১১-১২।

Leave a Comment

error: Content is protected !!