উইলিয়াম শেকসপিয়র ছিলেন একজন ইংরেজি নাট্যকার, কবি এবং অভিনেতা

উইলিয়াম শেকসপিয়র বা উইলিয়ম শেক্সপিয়র বা শেক্সপিয়ার (ইংরেজি: William Shakespeare; ২৬ এপ্রিল, ১৫৬৪; মৃত্যু ২৩ এপ্রিল, ১৬১৬) ছিলেন একজন ইংরেজী নাট্যকার, কবি এবং অভিনেতা, যাকে ব্যাপকভাবে ইংরেজি ভাষার সর্বশ্রেষ্ঠ লেখক এবং বিশ্বের মহত্তম নাট্যকার হিসাবে বিবেচনা করা হয়। বিশ্বসাহিত্যের বিরল কয়েকটি প্রতিভা তাঁদের যুগোত্তীর্ণ অবদানের জন্য সময়ের সীমা অতিক্রম করে মহামানব রূপে চিহ্নিত হয়েছেন, উইলিয়াম শেকসপিয়র তাদের মধ্যে অন্যতম।

মানবিকতাকে তার মতো করে উজ্জীবিত ও আলোকিত করতে পেরেছেন খুব কম লেখকই। ওয়ারউইক শায়ারে অ্যাভন নদীর তীরে স্ট্রাটফোর্ডে জন্মগ্রহণ করেন শেকসপিয়র। তার বাবার নাম ছিল জন শেকসপিয়র এবং মায়ের নাম ছিল মেরী আর্ডেন।

সাত ভাইবোনের মধ্যে উইলিয়াম বাদে আর সকলেই মারা গিয়েছিল শৈশবে প্লেগ রোগের আক্রমণে। স্ট্রাটফোর্ডে প্লেগের প্রাদুর্ভাব ঘটেছিল মারাত্মকভাবে। সেই সময় উইলিয়মের বয়স মাত্র একবছর। ভাগ্যক্রমে তিনি প্লেগের হাত থেকে রক্ষা পান।

উইলিয়মের শৈশব ও বাল্যকাল সম্বন্ধে বিশেষ কিছু জানা যায় না। তবে এটুকু জানা যায় যে তার জন্ম হয়েছিল প্রাচীন ইংরাজ জোতদার পরিবারে। তার বাবা স্ট্রাটফোর্ডের অল্ডারম্যান এবং কর্পোরেশনের বেলিফ নির্বাচিত হয়েছিলেন। এই সব সরকারি পদে থাকার সময়ে মঞ্চাভিনয়ের প্রতি তার আগ্রহ ও পৃষ্ঠপোষকতার কথা জানা যায়।

বাইরে থেকে যে সব নাট্যদল শহরে আসত তিনি তাদের সরাসরি অর্ধসাহায্য পেতে সাহায্য করতেন। অনুমান করা যায় যে পিতার এই নাট্যপ্রীতি পুত্র উইলিয়ামের মধ্যেও সঞ্চারিত ও বিকাশলাভ করেছিল।

অনেকে বলেন, জন শেকসপিয়র পেশায় ছিলেন কসাই। তবে স্ট্রাটফোর্ড শহরের পরিসংখ্যান থেকে নির্ভরযোগ্য ভাবে যা জানা যায় তা হল, জন ছিলেন একজন দক্ষ দস্তানা প্রস্তুতকারক এবং নরম-চামড়ায় তৈরি দ্রব্যাদির ব্যবসায়ী।

আরো পড়ুন:  জন মিলটন ছিলেন বিশ্ব সাহিত্যের অন্যতম শ্রেষ্ঠ মহাকবি, বুদ্ধিজীবী ও লেখক

যাই হোক, স্টাটফোর্ডের পরিবেশে ছেলেবেলা থেকেই যে উইলিয়াম মঞ্চে অভিনীত নাটক দেখার সুযোগ পেয়েছিলেন, তা অনুমান করতে কষ্ট হয় না। এভাবেই কবিতা ও অভিনয়ের প্রতি অনুরাগ জন্মে উঠেছিল তার। পড়াশোনার সঙ্গে বাবার ব্যবসাও দেখাশোনা করতেন উইলিয়ম। এভাবেই কাটল জীবনের আঠারোটা বছর।

শেকসপিয়র সম্পর্কে প্রচলিত গল্প হলো যে তিনি নাকি স্ট্রাটফোর্ড এলাকায় হরিণ চুরি করে বেড়াতেন। একবার হরিণ চুরির অপরাধে শাস্তি এড়াবার জন্যই নাকি লন্ডনে পালিয়ে গিয়েছিলেন। সেখানে নাট্যশালায় যারা থিয়েটার দেখতে আসতেন তাদের ঘোড়া রক্ষণাবেক্ষণ এবং তদারকি করাই ছিল তার জীবিকা। এসব গল্প নিছকই গল্প, এগুলোর কোনো বাস্তব ভিত্তি আছে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন না।

আঠারো বছর বয়সেই শেকসপিয়র বিয়ে করেছিলেন অ্যান হ্যাথাওকে। জন শেকসপিয়রেরই একজন জোতদার বন্ধুর কন্যা ছিলেন অ্যান। বয়সেও ছিলেন উইলিয়ামের চেয়ে আট বছরের বড়। স্ট্রাটফোর্ডের নিকটবর্তী টেম্পল গ্রাফটন-এর গীর্জায় বিয়ে হয়েছিল তাদের। এই বিয়ের জন্য দরকার হয়েছিল বিশেষ লাইসেন্স আর তা জোগাড় করা হয়েছিল উরস্টার-এর বিশপের কাছ থেকে।

বিয়ের ছমাসের মাথায়ই সংসারে নতুন অতিথির আগমন ঘটল। উইলিয়াম ও অ্যানের প্রথম সন্তান সুশানা-এর জন্ম হলো। ১৫৮৫ খ্রিস্টাব্দে সংসারে এলো জমজ সন্তান। তাদের নামে রাখা হলো হ্যামনেট ও জুডিথ। সংসার বাড়ল, সংসারের খরচও বাড়ল সেই সঙ্গে। বিব্রত উইলিয়াম চলে এলেন লন্ডনে। সংসার পড়ে রইল স্ট্রাটফোর্ডের বাড়িতে।

কবিতা ও অভিনয়ের প্রতি ছেলেবেলা থেকেই আকর্ষণ ছিল তার। লন্ডনে এসে তিনি ঢুকে পড়লেন একটা নাটকের দলে। এখানে গোড়ার দিকে তার কাজ ছিল ফাইফরমাস খাটা আর নাটক লেখা। সেই কালে নাটক লিখিয়েদের খুব একটা মর্যাদা ছিল না। থিয়েটারের আর পাঁচজন সাধারণ কর্মীর মতই তাদের গণ্য করা হত।

পুরনো নথিপত্র থেকে জানা যায় যে উইলিয়াম গ্লোব বা অন্য কোন থিয়েটারে অভিনয় করেননি। রিচার্ড বারবেজ, এডওয়ার্ড অ্যালিন এবং পরবর্তিকালে লর্ড চেম্বারলেনের কোম্পানির সঙ্গে কাজকর্ম করেছেন।

আরো পড়ুন:  পাবলো নেরুদা হচ্ছেন চিলির জাতীয় এবং সাম্যবাদী বিপ্লবের কবি

লন্ডনের জীবনের অল্প কিছুদিনের মধ্যেই উইলিয়াম নিজের খরচে দুটি কবিতা পুস্তক প্রকাশ করেন। ১৫৯৩ খ্রিস্টাব্দে ভেনাস ও অ্যাডোনিস এবং ১৫৯৪ খ্রিস্টাব্দে দ্য রেপ অব লুক্রেসি প্রকাশিত হলে কবি হিসেবে তিনি স্বীকৃতি লাভ করেন।

উইলিয়ামের লেখা নাটক মঞ্চে অভিনীত হচ্ছে এবং রীতিমত সাফল্যের সঙ্গেই। কিন্তু সেগুলো বই আকারে প্রকাশের কোনো আগ্রহ তার ছিল না। কোন প্রকাশকও এগিয়ে আসেনি। সেই যুগে নাটককে সাহিত্য বা শিল্পকর্ম হিসেবে গণ্য করা হতো না বলেই উইলিয়ামের মঞ্চসফল ও জনপ্রিয় কোনো নাটক তিনি তার জীবদ্দশায় বই আকারে দেখে যেতে পারেননি। তার জীবনীও প্রকাশিত হয়েছিল তার মৃত্যুর একশত বছর পরে।

তবে উইলিয়াম তার সহজাত প্রতিভাবলে একজন সাধারণ কর্মী থেকে নিজেকে তুলে আনতে পেরেছিলেন লন্ডনের অন্যতম প্রধান নাট্যদলের মালিকানার অংশীদার হিসেবে। গ্লোব থিয়েটারেব নয়জন অংশীদারের মধ্যে উইলিয়াম ছিলেন দ্বিতীয় ব্যক্তি।

১৫৯৬ খ্রিস্টাব্দে উইলিয়ামের জীবনে নেমে আসে চরম বিপর্যয়। তার একমাত্র পুত্র হ্যামনেট মাত্র এগার বছর বয়সে আকস্মিকভাবে মারা যায়। এই দুর্ঘটনা তাঁকে চরম আঘাত হেনেছিল। তিনি এর পর লন্ডনের বাস উঠিয়ে চলে আসেন স্ট্রাটফোর্ডে।

এখানেই ১৫৯৭ খ্রিস্টাব্দে তিনি একটি মস্ত বাড়ি কিনে স্থায়ী ভাবে বসবাস করতে থাকেন। নতুন বাড়ির নামকরণ করেন নিউ প্লেস। সবসুদ্ধ আট ন’বছর লন্ডনে ছিলেন উইলিয়াম। এই সময়ে একের পর এক নাটক লিখেছেন আর ব্যস্ত থেকেছেন সেগুলো মঞ্চস্থ করার কাজে।

স্ট্রাটফোর্ডেই উইলিয়াম তার দুই মেয়ে সুশান ও জুডিথের বিয়ে দেন যথাক্রমে ১৬০৮ ও ১৬১৬ খ্রিস্টাব্দে। জুডিথের বিয়ের অব্যবহিত পরেই ১৬১৬ খ্রিস্টাব্দের ২৩শে এপ্রিল তিনি লোকান্তরিত হন।

শেক্সপীয়রের জীবন ও কর্ম সাধনার অনেক কিছুই আমাদের অজানা। বহুবিষয় এখনো পণ্ডিতদের গবেষণার পর্যায়ে রয়েছে। ভবিষ্যতে হয়তো নতুন তথ্য জানা যাবে। এ পর্যন্ত তাঁকে বিষয় করে যত বই লেখা হয়েছে পৃথিবীতে অপর কোনো লেখককে নিয়ে তা হয়নি।

আরো পড়ুন:  জন কিটস ছিলেন ইউরোপের রোমান্টিক যুগের সর্বকনিষ্ঠ অন্যতম কবি

শেকসপিয়রের নাটকের প্রথম সঙ্কলন ফার্স্টফোলিও প্রথম প্রকাশিত হয় ১৬২৩ খ্রিস্টাব্দে। তিনি মোট ৩৪টি নাটক রচনা করেন। সেগুলি হলো:

ঐতিহাসিক নাটক: চতুর্থ হেনরী, চতুর্থ হেনরী দ্বিতীয়ভাগ, পঞ্চম হেনরী, অষ্টম হেনরী।

ঐতিহাসিক বিয়োগান্ত নাটক: ষষ্ঠ হেনরী ১ম, ২য়, তৃতীয় ভাগ, তৃতীয় রিচার্ড, দ্বিতীয় রিচার্ড, কিং জন।

বিয়োগান্ত নাটক: টাইটাস এড্রোনিকাস, রোমিও ও জুলিয়েট, জুলিয়াস সিজার, হেমলেট, ওথেলো, কিং লিয়ার, ম্যাকবেথ, এন্টনী ও ক্লিয়োপেট্রা, কোরিওল্যানাস, টাইমন অব এথেন্স।

হাস্যরসাত্মক নাটক: দি কমেডি অব এররস, দি টেমিং অব দ্য শ্রু, দি টু জেন্টলম্যান অব ভেরোনা, লাভস লেবার লস্ট, মিড সামারনাইটস ড্রিম, দি মার্চেন্ট অব ভেনিস, মাচ এডো এবাউট নাথিং, অ্যাজ ইউ লাইক ইট, দ্যা মেরী ওয়াইভস অব উইগুসর, টুয়েলফত নাইট, ট্রয়লার্স অ্যান্ড ক্রেসিডা, অলস ওয়েল দ্যাট এন্ডস ওয়েল, সিম্বেলিন, দি উইন্টার্স টেল, দি টেম্পেস্ট, দি টু নোবল কিন্সমেন।

শেক্সপীয়রের কাব্যের মধ্যে রয়েছে: ১৫৪টি সনেট, ভেনাস অ্যান্ড অ্যাডোনিস এবং দি রেপ অব লুজিসি এবং একটি শোক সঙ্গীত দি ফিনিক্স অ্যান্ড দি টার্টল।

তথ্যসূত্র

১. যাহেদ করিম সম্পাদিত নির্বাচিত জীবনী ১ম খণ্ড, নিউ এজ পাবলিকেশন্স, ঢাকা; ২য় প্রকাশ আগস্ট ২০১০, পৃষ্ঠা ১০৮-১১১।

Leave a Comment

error: Content is protected !!