অনুপ সাদি একজন সংগ্রামী কলমযোদ্ধা

মার্কসবাদ বই

একদিন আমি দেখলাম একটি বাঁশিআর সবগুলো থেকে আলাদা,সেইটিই তারপর থেকে আমার প্রিয় বাঁশিআমি এখন ওটিকেই বাঁজাই। —- বাঁশিঅলা, পৃথিবীর রাষ্ট্রনীতি আর তোমাদের বংশবাতি অনুপ সাদি হচ্ছেন একজন কবি, প্রাবন্ধিক, সমাজ ও রাষ্ট্র চিন্তাবিদ, সুবক্তা ও শিক্ষক। সত্যিই তিনি একটি বাঁশি বাজান, আর তাতে সুর তুলে আহ্বান করেন সংগ্রামের, পরিবর্তনের, বিপ্লবের, প্রগতির। তাঁর বাঁশির সুর সেই … Read more

নিজকথায় লোককথায় হুমায়ুন আজাদ গ্রন্থের আলোচনা

হুমায়ূন আজাদ

বইয়ের নাম – নিজকথায় লোককথায় হুমায়ুন আজাদলেখক: অনুপ সাদি ধরন- প্রবন্ধপ্রকাশনা- শোভাপ্রকাশপ্রথম প্রকাশ – ফেব্রুয়ারী ২০১৫প্রচ্ছদ – আইয়ুব আল আমিনের স্কেচ অবলম্বনে পৃষ্ঠা – ১২৮মূল্য- ২০০ টাকা মাত্র নিজকথায় লোককথায় হুমায়ুন আজাদ হচ্ছে অনুপ সাদি রচিত একটি গ্রন্থ।  গ্রন্থটি রচিত হয়েছে হুমায়ুন আজাদ নামক আরেক পরিচিত লেখককে নিয়ে; যিনি বাংলাদেশের প্রভাবশালী লেখকদের মধ্যে অন্যতম স্পষ্টভাষী … Read more

অনুপ সাদির কবিতায় সবার উপরে তার রাজনৈতিক চেতনা স্থান পায়

আধুনিক মানুষের ধারাবাহিক গল্প কবিতাগ্রন্থ

সাহিত্য প্রসঙ্গে একটি আলোচনা করতে গিয়ে ভ্লাদিমির ইলিচ লেনিন বলেন; “দূর হোক অ-পার্টি সাহিত্যিক! দূর হোক অতি-মানব সাহিত্যিক! সাহিত্যের ব্যাপারটাকে হতে হবে সমগ্র প্রলেতারিয়েতের কর্মযোগের একটা অংশ।”[১] লেখক অনুপ সাদির কবিতা বা গান বা যে কোনো রাজনৈতিক প্রবন্ধই এই জায়গা থেকেই আমি মূল্যায়ন করব। তিনি মার্কসবাদী দর্শন ধারণ করেন বলে দাবী করেন, আমিও করি। এই … Read more

মাও সে-তুঙের লাল বই — দ্বিতীয় সংস্করণের মুখবন্ধ

মাও সে-তুঙের চিন্তাধারা

কমরেড মাও সে-তুঙ বতর্মান যুগের সবচেয়ে মহান মার্কসবাদী-লেনিনবাদী। কমরেড মাও সে-তুঙ প্রতিভার সঙ্গে, সৃজনশীলভাবে ও সামগ্রিকভাবে মার্কসবাদ-লেনিনবাদকে উত্তরাধিকার সূত্রে লাভ করেছেন, রক্ষা করেছেন ও বিকাশ করেছেন, মার্কসবাদ-লেনিনবাদকে এক সম্পূর্ণ নতুন পর্যায়ে উন্নত করেছেন। মাও সে-তুঙের চিন্তাধারা এমন একটা যুগের মার্কসবাদ-লেনিনবাদ, যে যুগে সাম্রাজ্যবাদ সামগ্রিক ধ্বংসের মুখে চলছে আর সমাজতন্ত্র এগিয়ে চলছে বিশ্বব্যাপী বিজয়ের পথে। মাও … Read more

লোকশিল্পী ও ভূমিকন্যা শাহেরা খাতুন

লোকশিল্পী ও ভূমিকন্যা

সাধারণের গন্ডি পেরোনো এক রত্নগর্ভা। প্রয়োজন নেই রাষ্ট্রীয় সীমাবদ্ধ পদকতালিকায় নাম লেখানোর, তাবত পৃথিবীকে উর্বর করার মিছিলে তাঁরা হেঁটে যায়, মিছিলি মিছিলি জীবনে যাঁরা রেখে যায় পদচিহ্ন, অমোচনীয় কালিতে তাঁদের নাম লিখা থাকে পৃথিবীর পথে পথে, তিনি শাহেরা খাতুন। সকল সীমাবদ্ধতাকে অতিক্রম করা কর্মদ্দোমী, প্রকৃতি থেকে পাঠ নিয়ে সদা নিজেকে করেছেন সমৃদ্ধ। জগতের কল্যাণের নিমিত্তে … Read more

শাহেরা খাতুন কঠিন বাস্তবতা থেকে শিক্ষা নিয়ে হয়ে উঠেছিলেন বাস্তববাদী

ভারতীয় উপমহাদেশ সংক্রান্ত আলোচনার সাথে পৃথিবীর অন্যান্য অংশের সামাজিক অর্থনৈতিক ধারাবাহিকতার সম্পর্ক আছে, এমনকি ১৭৫৭ থেকে ১৯৪৭ এই ১৯০ বছর এই অঞ্চলের বৃটিশ বিরোধী লড়াই-সংগ্রামগুলো সূক্ষ্মভাবে পর্যালোচনা ও অনুধাবন করলে দেখা যাবে ভারতীয় উপমহাদেশের রাজনীতি ঐক্যবদ্ধভাবে একমুখী ছিল! ফ্রান্সের শিল্প বিপ্লব যন্ত্রের ব্যবহারকে ব্যাপক মাত্রায় বিকশিত করায় সারা বিশ্বেই এর কম বেশি প্রভাব পড়ে। ১৯৪৭ … Read more

আমাদের জীবনে আলোকদীপ্ত শাহেরা খাতুনের অবদান

আমাদের জীবনে আমাদের মা আলোকদীপ্ত শাহেরা খাতুনের অবদান আলোচনা করবার উদ্দেশ্যে এই এই লেখা লিখতে বসেছি। তাঁর অবদান বিভিন্নভাবে আমাদের জীবনকে প্রভাবিত করেছে। আমাদের মা শাহেরা খাতুনের জীবন কঠোর অবরোধ প্রথা এবং পুরুষাধিপত্যের পরিবেশে অতিবাহিত হয়েছে। তাঁর জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত বিরাজিত বহুমুখী কাজের বৈশিষ্ট্য ছিল পুরুষতন্ত্রের কঠোর অবরোধ প্রথার উচ্ছেদ করে নারীর অর্থনৈতিক স্বাধীনতা … Read more

শাহেরা খাতুনের চিন্তাধারা হচ্ছে উদারতা, স্বনির্ভরতা আর পরোপকারিতা

আমার নানী শাহেরা খাতুনের চিন্তাধারা বহু দিকে বিস্তৃত হয়েছে। তাঁকে দেখেছি একজন উদার পরোপকারী স্বনির্ভর মানুষ হিসেবে। তিনি প্রচণ্ড পরিশ্রমী একজন ব্যাক্তি ছিলেন। ভোর থেকে শুরু করে রাত্রে বিছানায় শোয়ার আগ পর্যন্ত ঘরের কাজ, বাইরের কাজ, বসতভিটা এবং কান্টায় গাছপালার সার্বিক যত্ন নেওয়া, হাস, মুরগি, গরু, ছাগলের যত্ন নেওয়া থেকে শুরু করে সকল কাজ কর্ম … Read more

আমার বড় বোন শাহেরা খাতুন নিজ জ্ঞানে সারা জীবন চলেছেন

আমার বড় বোন শাহেরা খাতুনের সাথে আমার বয়সের পার্থক্য অন্তত দশ বছরের। ওর বিয়ের কথা আমার মনে পড়ে না। ওদেশে [পশ্চিমবঙ্গে] আমার সাথে শাহেরা খাতুনের কোনো কথাই মনে পড়ে না, কারণ আমি খুব ছোট ছিলাম। শাহেরা অনেক আগেই এদেশে চলে আসে। ও দামোলে চলে আসলে আমার বাবা মন খারাপ করে থাকত। ফলে বাবা সবাইকে নিয়ে … Read more

বড় ফুপু শাহেরা খাতুন ছিলেন পুরো পরিবারের তথ্য ভাণ্ডার

বড় ফুপু শাহেরা খাতুন আমার বাবা-চাচাদের মধ্যে সবার চেয়ে বড়। আমাদের রণহাট্টা গ্রামের বাড়ি থেকে ফুপুদের বাড়ি দেড় কিলোমিটার দূরে। অনেক রকম ফলের গাছ ছিল ফুপুর বাসায়। ছোট বেলায় সাইকেল নিয়ে অনেক গিয়েছি আম-কাঁঠাল খাওয়ার জন্য। নানা রকম গাছের ছায়ায় বসলেই প্রাণটা জুড়িয়ে যেত। বড় ফুপুর বাসায় গেলেই কোনো না কোনো খাবারের আয়োজন করতে ব্যস্ত … Read more

error: Content is protected !!